জীবন্ত শিশুর পরিবর্তে রোবট শিশু

যন্ত্রনির্ভর শহর জাপানের মানুষগুলো স্বাভাবিক জীবন ভুলে গিয়ে ঝুকে পড়ছে বিরামহীন কাজের দিকে। ফলে আগের মতো আর সংসার ও বাচ্চাকাচ্চা তারা নিতে চায়না বললেই চলে।। ফলে কমছে দেশটির জনসংখ্যাও। শিশু জনগোষ্ঠীর সংখ্যাহ্রাসের কারণে বুড়ো-বুড়িরা আগের মতো ছোট্ট খেলার সাথীও আর পাচ্ছে না তেমন।

আর যেসব নর-নারী ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও শারীরিক কারণে বাচ্চার বাবা-মা হতে পারছে না তারাও ভুগছে বিষণ্নতাসহ নানান আবেগগত সমস্যায়। বিজ্ঞাননির্ভর জাপানিরা কিন্তু বসে নেই। তারা আবিস্কার করে নিচ্ছে শিশুর চাহিদা মেটাবার মতো শিশু রোবট। অভাববোধকে ভুলিয়ে দেওয়ার মতো রোবট। যে রোবট ছোট্ট বাচ্চাদের মতোই অবিকল আচরণ করবে।

টয়োটা কোম্পানি এবার শিশুসুলভ চেহারার এক অভিনব রোবট তৈরি করেছে। ঠিক যেন অতি আদরের ছোট্ট বাবুটি। ছিঁচকাঁদুনে স্বভাব আর বড্ড অভিমানী তার হাবভাব-আচরণ। বাচ্চা-বাচ্চা চেহারার এ রোবটের নাম রাখা হয়েছে কিরোবো মিনি (Kirobo Mini)।

আদুরে ছোট্ট বাচ্চাদের মতোই রোবটটি বারবার চোখ পিটপিট করে। একটু পরপর বাচ্চাদের মতো তারস্বরে কেঁদে-চেঁচিয়ে বড়দের মনোযোগ দাবি করে।

রোবটটির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে একটি যান্ত্রিক দোলনাও। ওই দোলনাতে শুইয়ে দেওয়ার পর দোলনাটি আকারে দ্বিগুণ হয়ে রোবটটিকে বাচ্চাদের মতো এদিক-ওদিক দোলা দিতে থাকবে।

ছোট বাচ্চারা শরীরের ভারসাম্য রাখতে পারে না। টাল সামলাতে পারে না। কিরোবো মিনি (Kirobo Mini) নামের শিশুসুলভ চেহারাধারী রোবটটিও অনেকটা সে রকমই আচরণ করে। ভারসাম্য রাখতে না পারার ভাব করে সে বড়দের আদর ও মনোযোগ দাবি করে। ওটাকে এভাবেই বানিয়েছেন ইঞ্জিনিয়াররা। চিফ ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ার ফুমিনোরি কাতাওকা সেটাই বললেন: “This vulnerability is meant to invoke an emotional connection.”

টয়োটা আগামী বছর ৩৯ হাজার ৮শ ইয়েন (৩৯২ ডলার) দামে এটি জাপানের বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা করছে।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password