কর ফাঁকি ও জালিয়াতি মামলায় বিচারের মুখে নেইমার

অনেকদিন থেকে ঝুলে থাকা কর ফাঁকি ও জালিয়াতি মামলায় বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন নেইমার। ব্রাজিলিয়ান তারকা অবশ্য আগেই একবার শুনানির সম্মুখীন হয়েছিলেন। স্পেনের আদালত আবারো নতুন করে নেইমারের বিষয়টি তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছে।

স্পেনের শীর্ষ ফৌজদারি আদালতের প্রসিকিউটরগণ (রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি বা কৌঁসুলি) নেইমার, তার পরিবার ও বার্সেলোনার বিপক্ষে অভিযোগ করেন, সান্তোস থেকে বার্সায় যোগ দেওয়ার সময় দলবদলের প্রকৃত অর্থের পরিমান গোপন রাখেন নেইমার ও তার বাবা।

গত জুলাইয়ে বিচারক হোসে ডি লা মাতা তথ্য ও প্রমাণ না পাওয়ায় নেইমারের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ আমলে নেননি। তবে, অ্যাঞ্জেলা মুরিলো এবং আরও কয়েক জন আইনজীবি এবার দাবী তুলেছেন তারা নেইমার আর তার পরিবারের কর ফাঁকির যথেষ্ট প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন। ফলে, স্পেনের আদালত আরেকবার নেইমারের কেস চালু করার নির্দেশ দেয়।

২০১৩ সালে ৫৭ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে পাঁচ বছরের চুক্তিতে সান্তোস ছেড়ে বার্সায় পাড়ি জমান নেইমার। কিন্তু পরবর্তীতে সঠিক ট্রান্সফার ফি লুকানোর অভিযোগের বিষয়টি আদালতে গড়ায়। তদন্তকারীদের দাবি ট্রান্সফার ফি ছিল প্রায় ৮৩ মিলিয়ন ইউরো।

যদিও বার্সা বরাবরের মতোই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে নেইমার নিজেও তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন এবং কোনো ধরনের অপরাধ করেননি বলে জানান।

গত ফেব্রুয়ারির শুরুতে নেইমার ও তার পরিবারের সঙ্গে বার্সার সাবেক প্রেসিডেন্ট সান্দ্রো রোসেল, বর্তমান প্রেসিডেন্ট জোসেফ মারিয়া বার্তোমেউ শুনানিতে উপস্থিত থেকে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরেছিলেন।

মাদ্রিদের আদালতে ডকুমেন্ট জমা দেওয়ার পর দু’বছর হয়ে গেছে নেইমারের ট্রান্সফার ফি’র তদন্ত কাজ চলছে। এবার দেশটির ন্যাশনাল কোর্ট নতুন করে মামলা দায়েরের পথে হাঁটছে। প্রসিকউটরদের বিশ্বাস বার্সেলোনা ও সান্তোস ক্লাব; নেইমার; তার বাবা-মা; সাবেক বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট; সাবেক সান্তোস প্রেসিডেন্ট ওডিলি রদ্রিগেজ এবং নেইমারের পরিবারের কোম্পানি দুর্নীতি চেষ্টায় জড়িত।

বার্সার বর্তমান প্রেসিডেন্ট বার্তোমেউর বিপক্ষেও মামলা দায়েরের সুপারিশ করেছেন প্রসিকিউটর। কারণ, তৎকালীন সময়ে ভাইস-প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন তিনি অধিকাংশ চুক্তি স্বাক্ষর করেছিলেন।

বলা বাহুল্য, নেইমার ও তার বাবার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের ছয় থেকে দু’বছরের জেল হতে পারে।

নিজ দেশ ব্রাজিলেও কর ফাঁকি দেওয়ার মামলাতেও দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ব্রাজিলের এই তারকা ফুটবলার। ২০০৭ ও ২০০৮ সালে কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে এক লাখ ১২ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়েছিল নেইমারকে।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password