বাংলাদেশ সফর বাতিল করলেন মরগান, অধিনায়ক বাটলার

ইংল্যান্ডের সীমিত ওভারের দলপতি ইয়ন মরগান শেষ পর্যন্ত নিজের সিদ্ধান্তেই অটল থাকলেন । বাংলাদেশ সফরে তিনি আসছেন না। তার জায়গায় ইংল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক জস বাটলার দলকে নেতৃত্ব দেবেন। ইংলিশ সংবাদমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফ এমনটাই জানিয়েছে।

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে দুইটি টেস্ট ও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আসবে ইংল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দল। ১৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সফরের জন্য ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দল ঘোষণা করার কথা। যদিও এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে দলে কারা থাকছেন, সে ব্যাপারে কিছুই জানায়নি ইসিবি।

বাংলাদেশ সফরের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে না পারা মরগান জানিয়েছিলেন, পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ শেষে সিদ্ধান্ত নেবেন বাংলাদেশ সফরের ব্যাপারে। পাকিস্তানের বিপক্ষে সেই সিরিজ শেষ। এখন বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে আসার ক্যাম্প শুরু করবে ইংলিশরা। কিন্তু, জানা যাচ্ছে, বাংলাদেশ পর্যবেক্ষণ করে যাওয়া দলের নিরাপত্তা প্রধান রেগ ডিকাসনের উপর মরগান আস্থা রাখতে পারছেন না।

ইংল্যান্ড জাতীয় দলের টেস্ট দলপতি অ্যালিস্টার কুক বাংলাদেশ সফরে আসতে চাইলেও এ সফরে নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকার প্রসঙ্গে মরগান সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন।

উপমহাদেশে অতীতের বাজে অভিজ্ঞতা আর বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণেই আসন্ন সিরিজে খেলতে আসতে চাইছেন না মরগান।

তিনি জানান, ‘আমি ২০১০ সালে ভারতের মাটিতে আইপিএলের আসরে খেলতে গিয়েছিলাম। বেঙ্গালুরুর হয়ে খেলতে নেমেছিলাম। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে সেই ম্যাচ চলাকালীন সময়ে স্টেডিয়ামের বাইরে দুটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। যদিও ম্যাচটি পরে সম্পন্ন হয়েছিল কিন্তু, আমাদের নিরাপদে রাখার জন্য ওই ম্যাচের পর আমাদের বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।’

তিন বছর পর বাংলাদেশে খেলতে এসেছিলেন মরগান। ২০১৩ সালে নভেম্বরের শেষ দিকে ঢাকায় গাজী ট্যাংক ক্রিকেটার্সের হয়ে প্রিমিয়ার ডিভিশনে খেলার সময় তিনি তখনকার রাজনৈতিক বাজে পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশে তখন চলছিল নির্বাচন পূর্ব রাজনৈতিক অস্থিরতা। সেবার তিনি খেলেছিলেন ৫টি ম্যাচ। বাংলাদেশে ১০ দিন অবস্থান করেছিলেন।

মরগান আরও যোগ করেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে সবাই চায় স্বস্তিতে থেকে ক্রিকেটে মন দিতে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বা যেকোনো ক্রিকেট মানে তো অন্য কিছু নিয়ে দুশ্চিন্তা নয়। এটা হওয়া উচিত আপনার জীবনের সেরা সময়। আপনি চাইবেন মনযোগটা পুরোপুরি ক্রিকেটেই ধরে রাখতে। কিন্তু, খেলতে গিয়ে তা উপভোগ করার চেয়ে যদি আপনাকে নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে হয়, তবে সেটি সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। এর আগেও আমি নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা থাকলেও বিভিন্ন জায়গায় খেলেছি। কিন্তু, মন থেকে বলছি আমি বারবার একই রকম পরিস্থিতিতে পড়তে চাই না।’

২৯ বছর বয়সী ইংলিশদের নিয়মিত ওয়ানডে দলপতি জানান, ‘আমি বাংলাদেশে থাকাকালীন সেখানকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি ভয়াবহ দেখেছি। দলে এমন অনেকেই আছে যারা নিরাপত্তা শঙ্কা নিয়ে কোনো সফরে যায়নি। আর বাংলাদেশে ওই সন্ত্রাসী হামলার (গুলশান হামলা) পর কোনো আন্তর্জাতিক দলই সেখানে সফর করেনি।’

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password