ছাত্রকে বেধরক পিটালেন শিক্ষক

স্কুলে দুই দিন অনুপস্থিত থাকার কারণে নবম শ্রেণির ছাত্রকে পিটিয়ে জখম করলেন এক শিক্ষক। আহত ছাত্রকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রহার করার বিরুদ্ধে আইনি নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ছাত্র নির্যাতনের এই ঘটনা ঘটেছে পিরোজপুর মঠবাড়িয়া উপজেলায়।

উপজেলার উদয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে রফিকুল ইসলাম (১৫) নামের নবম শ্রেণির এক ছাত্রকে পিটিয়ে জখম করেছেন শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন। রফিকুল পশ্চিম কলেজপাড়া মহল্লার মো. জালাল মিয়ার ছেলে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রফিকুল ইসলাম জানায়, গত রোববার ও সোমবার বৃষ্টির কারণে সে স্কুলে অনুপস্থিত ছিল। মঙ্গলবার সকালে সে স্কুলে যায়। সকাল পৌনে ১০টার দিকে শ্রেণি শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন ক্লাসে এসে শিক্ষার্থীদের হাজিরা নেওয়ার সময় দেখতে পান রফিকুল গত দুই দিন অনুপস্থিত ছিল। তিনি রফিকুলের কাছে অনুপস্থিত থাকার কারণ জানতে চান। কিন্তু রফিকুল কিছু বলার আগেই দেলোয়ার হোসেন তাকে বেত দিয়ে বেধড়ক পিটুনি দিতে থাকেন। সে সময় রফিকুল অনুপস্থিত থাকার কারণ শোনার জন্য অনুরোধ করলে শিক্ষক শ্রেণিকক্ষ থেকে তাকে বের করে দেন।

রফিকুল ইসলামের চাচা জামাল হোসেন বলেন, ‘বাড়িতে এসে রফিকুল অসুস্থ হয়ে পড়ে। তার মুখ থেকে আমরা ঘটনা জানতে পারি। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।’ তিনি জানান, রফিকুলকে হাসপাতালে ভর্তির পর শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রিয়াংকা হালদার বলেন, মারপিটের কারণে রফিকুলের শরীরে জখম হয়েছে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

শিক্ষক দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি মুঠোফোনে কথা বলতে চাননি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দিন বলেন, ‘আমি বরিশালে আছি। বিষয়টি শুনেছি। খোঁজখবর নিচ্ছি।’ মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মাহাবুবুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password