প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করলেন চলচ্চিত্রের শিল্পীরা

মো. কামরুজ্জামান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

বাংলা চলচ্চিত্র আমদানী-রপ্তানীর নামে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে একতরফাভাবে ভারতীয় চলচ্চিত্র আমদানির আদেশ বাতিল করার দাবীতে আজ শুক্রবার দুপুর ১২টায় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে অংশ নেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি, প্রযোজক পরিবেশক সমিতি, শিল্পী সমিতি, সিডাব, উৎপাদন ব্যবস্থাপক সমিতি, চিত্রগ্রাহক সংস্থাসহ আরও কিছু সংগঠন। এই সময় উপস্থিত ছিলেন পরিচালক আমজাদ হোসেন, চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, সহ-সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার, ফিল্ম এডিটর গিল্ডের সভাপতি আবু মুসা দেবু, অভিনেতা ও শিল্পী সমিতির সহ-সভাপতি ওমর সানি, অভিনেতা রুবেল,জায়েদ খান,ভাবনাসহ আরও অনেকে। বিএফডিসির চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট সকল সংগঠন এক হয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।13839843_1185677048160041_792946403_o

উল্লেখ্য, গতকাল এফডিসিতে এক মত বিনিময় সভায় পরিচালক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার জাহান ঝন্টু বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিবের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আমাদের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসার ব্যবস্থা করে দিবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা আশা করছি, দশ মিনিট প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার সুযোগ হলে তিনি আমাদের এই সমস্যার সমাধান অবশ্যই করবেন। এই আন্দোলনের সঙ্গে নাট্য ও অনান্য সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোও যোগ দিয়েছে। আমরা আন্দোলনে অবশ্যই পিছপা হব না। অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, মনন, চিন্তা ও চেতনা দ্বারা চলচ্চিত্রের উন্নতি করতে হবে। আমি ১৯ বছর বয়সে এই চলচ্চিত্র জগতে কাজ করতে এসেছি।

চলচ্চিত্র শুধু আমাকে খ্যতি না অনেক কিছু শিখিয়েছে। আমি কয়েকদিন দেশের বাইরে ছিলাম। ১৯ তারিখ দেশে ফিরেছি। চলচ্চিত্র টিকে রাখার স্বার্থে অবশ্যই আমাকে আপনারা পাশে পাবেন। অভিনেতা রুবেল তার বক্তব্যে বলেন, আমরা খাল কেটে কুমির এনেছি। এখন সেই কুমির আমাদের কামড় দিচ্ছে। যৌথ প্রযোজনার নামে যেসব নোংরামী হচ্ছে তা আমাদের বন্ধ করা উচিত। কারণ সঠিক নিয়ম কানুন মেনে ছবি নির্মাণ হচ্ছে না। এছাড়া আমদানী ও রপ্তানীর এই অনিয়ম নিয়েও আমি প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদের সঙ্গে একমত পোষণ করছি।

শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে সমিতির সহ-সভাপতি ও অভিনেতা ওমর সানি বলেন, আমি রুবেলের কথার সঙ্গে একমত। যে কুমিরটাকে আমরা প্রশয় দিয়েছি , তা এখন আমাদের আস্তে আস্তে গ্রাস করতে বসেছে। চলচ্চিত্র আমাদের মায়ের মতন। আমি এই শিল্পকে ধ্বংস হতে দিতে চাই না। আমরা একত্রিত হয়ে এই সমস্যার সমাধান করতে চাই। আর আমার বিশ্বাস, আমরা এক থাকলে অবশ্যই জয়ী হব। আর ভারতে যেমন টেকনিক্যাল, আর্টিস্ট, পরিচালক মিলে একটি সংগঠন রয়েছে তেমন আমাদের এখানেও এমন একটি সংগঠন থাকা উচিত। যার অনুমতি ছাড়া আমাদের চলচ্চিত্রের কোনো কলাকুশলীরা কাজ করতে পারবে না। সকলে এক হয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন জানিয়েছেন যেন প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্র দেশে আমদানী না হয়।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password