আজ শেষ হচ্ছে নির্বাচনী প্রচারণা

উদ্বেগ-আতঙ্ক নিয়ে শেষ হচ্ছে পৌর নির্বাচনের প্রচারণা। আজ রাত ১২টা পর্যন্ত চলবে ভোটের প্রচার-প্রচারণা। নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, ভোটগ্রহণের ৩২ ঘণ্টা আগে পর্যন্ত প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন। এই প্রথম দলীয় প্রতীক ব্যবহার করে স্থানীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় নির্বাচনী প্রচারণায়ও ছিল ভিন্ন মাত্রা। নির্বাচনকে ঘিরে সংঘাত-সংঘর্ষও হয়েছে ব্যাপকহারে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের সঙ্গে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের প্রতিনিয়তই সংঘর্ষ হচ্ছে। এ ছাড়া দল সমর্থিত প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। এ অবস্থায় ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। যদিও এ দাবি আগেই নাকচ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আজ সকাল থেকে বিজিবি মোতায়েন করছে ইসি। এদিকে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় দুই এমপিকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এ ছাড়া সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে তিন থানার ওসি ও একজন রিটার্নিং অফিসারকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

পৌরসভা নির্বাচনে ২২৯টি পৌরসভায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েনের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপ-সচিব সামশুল আমল স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণায়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খানের কাছে পাঠানো হয়েছে। ২৮শে ডিসেম্বর থেকে ৩১শে ডিসেম্বর এসব পৌরসভায় চার দিনের জন্য মোট ১০২ প্লাটুন বিজিবি সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। তবে উপকূলীয় ছয়টি পৌরসভায় কোস্টগার্ড দায়িত্ব পালন করবে।

এ ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যও মোতায়েন থাকবে। এদিকে নির্বাচনে সাধারণ কেন্দ্রে ১৯ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ জন ফোর্স রেখে রোববার পরিপত্র জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রে কমপক্ষে পাঁচজন (অস্ত্রসহ) ও ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে কমপক্ষে ছয়জন (অস্ত্রসহ) পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে বলে জানা গেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, উপকূলীয় ছয়টি পৌরসভা (মুলাদী, মেহেন্দীগঞ্জ, পাথরঘাটা, রামগতি, সন্দ্বীপ ও হাতিয়া) ছাড়া বাকি ২২৯টি পৌরসভায় বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত প্রদান করা হযেছে। চিঠিতে আরও বলা হয়, ভোটার সংখ্যা ১ লাখের অধিক হলে ২ প্লাটুন এবং যেসব এলাকায় ভোটার সংখ্যা ৫০ হাজারের অধিক সেখানে এক প্লাটুনের বেশি মোতায়েন থাকবে। এ ছাড়া ১০ হাজার ভোটার হলে এক প্লাটুনের কম বিজিবি দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতি প্লাটুনে গড়ে ৩০ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করেন বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবির সদর দপ্তরের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহসীন রেজা।

বৈধ লাইসেন্সধারীদের সবধরনের অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ ছাড়া সন্ত্রাসী-ক্যাডারদের গ্রেপ্তার ও ভোটের পরিবেশ নিশ্চিতে সব ধরনের ব্যবস্থা নিতে প্রশাসন ও পুলিশকে বলা হয়েছে।

নির্বাচনী এলাকায় ভোটের আগের রাত থেকে শুরু করে মোট ৪৮ ঘণ্টা যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মেনে ২৯শে ডিসেম্বর রাত ১২টা (দিবাগত মধ্যরাত) থেকে ৩০শে ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। ইতিমধ্যে এ নির্দেশনা জারি করেছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। এসব পৌরসভায় বেবি ট্যাক্সি, ট্যাক্সি ক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, ্পিক আপ, কার, বাস, ট্রাক ও টেম্পোতে এ নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

এ ছাড়া নির্বাচনী এলাকায় ২৭শে ডিসেম্বর রাত ১২টা থেকে ৩১শে ডিসেম্বর ভোর ছয়টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে ইসি কর্মকর্তারা জানান, ইসি ও রিটার্নিং অফিসারের অনুমোদিত পরিচয়পত্রধারী, নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর, জরুরি পণ্য সরবরাহ ও অন্যান্য প্রয়োজনে এ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে হবে।

আগামী ৩০শে ডিসেম্বর ২৩৩টি পৌরসভায় একযোগে সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভোটগ্রহণ শেষ হবে বিকাল ৪টায়।

বাংলাদেশ সময় : ০৯৪৭ ঘন্টা, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৫

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password