আরব আমিরাতে পাসপোর্ট নবায়ন করেনি ৫০ হাজার বাংলাদেশী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাসপোর্ট নবায়ন করাননি ৫০ হাজার বাংলাদেশী। এখনও তারা হাতে লেখা পাসপোর্ট পরিবর্তন করে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট বা এমআরপি গ্রহণ করেননি।

ওদিকে আগামী ২৪শে নভেম্বরের পরে হাতে লেখা পাসপোর্ট গ্রহণযোগ্য হবে না। এমন নিয়ম করেছে ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন।

ফলে বাংলাদেশী অভিবাসীরা ওই সময়ের মধ্যে পাসপোর্ট পরিবর্তন করাতে ব্যর্থ হলে তাদেরকে অনেক ঝক্কি পোহাতে হবে। এখন গড়ে দিনে ২০০ বাংলাদেশী শ্রমিক দূতাবাসে যাচ্ছে পাসপোর্ট পরিবর্তন করাতে।

এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২৪শে নভেম্বরের মধ্যে প্রায় ৫ হাজার পাসপোর্ট পরিবর্তন করা সম্ভব হতে পারে। ফলে ৫০ হাজার শ্রমিকের বেশির ভাগই বড় একটি চাপে পড়তে পারেন। এক্ষেত্রে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশী দূতাবাস বাংলাদেশী অভিবাসীদের সতর্ক করেছে। যারা ২৪শে নভেম্বরের মধ্যে পাসপোর্ট পরিবর্তন করিয়ে এমআরপি গ্রহণ না করে থাকেন তাহলে তাদেরকে অভিবাসন বা ইমিগ্রেশনে আটকে দেয়া হবে এবং বিদেশ সফর করতে দেয়া হবে না। এ খবর দিয়েছে দ্য ইন্টারন্যাশনাল।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিয়োজিত বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ ইমরান বলেছেন, আমাদের নাগরিকদের সুবিধা দেয়ার ক্ষেত্রে সময়সীমা চলে গেলেও পুরনো পাসপোর্ট গ্রহণ অব্যাহত রাখবো। সেক্ষেত্রে পাসপোর্ট জমা দেয়ার ৬ সপ্তাহের মধ্যে নতুন ডকুমেন্ট পাবেন। এর ভিত্তিতে সফর করা যাবে।

এক্ষেত্রে যদি জরুরি বিদেশ সফর প্রয়োজন হয় তাহলে তারা নতুন ডকুমেন্ট না পাওয়া পর্যন্ত বিদেশ সফরে যেতে পারবেন না। এসব ঝক্কি এড়াতে অভিবাসীদেরকে সময়সীমার মধ্যে পুরনো পাসপোর্ট পরিবর্তন করিয়ে নেয়ার তাগিদ দেন তিনি।

তিনি বলেন, ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে এমআরপি দেয়া শুরু হয়। তখন থেকে সাড়ে ছয় লাখ থেকে ৬ লাখ ৬০ হাজার হাতেলেখা পাসপোর্ট পরিবর্তন করে এমআরপি ইস্যু করা হয়েছে। বর্তমানে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থান করছেন ৬ লাখের বেশি বাংলাদেশী। এর মধ্যে এখনও যারা পাসপোর্ট পরিবর্তন করান নি তাদের বেশির ভাগই নির্মাণ খাতে কাজ করছেন।

বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত বলেন, অদক্ষ শ্রমিকদের পাসপোর্ট পরিবর্তন করিয়ে নিতে প্রয়োজন হচ্ছে ১২৫ দিরহাম। পেশাদারদের ক্ষেত্রে তা ৪০৫ দিরহাম। প্রতিবেদনে বলা হয়, ছুটিতে অনেক বাংলাদেশী দেশে যান। গিয়ে সেখানে পাসপোর্ট পরিবর্তন করান। সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশ দূতাবাস তা সংগ্রহ করে নবায়নের জন্য দেশে পাঠাচ্ছে।

বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, পুরনো পাসপোর্ট বদলে গড়ে প্রতিদিন নতুন পাসপোর্ট নিতে দূতাবাসে যাচ্ছেন প্রায় ২০০ মানুষ। এমন একজন হলেন বাংলাদেশী রোকন মাহমুদ আলী। তিনি বলেন, নতুন একটি পাসপোর্ট পেতে ৬ সপ্তাহের মতো সময় লাগে।

ফোরম্যানের চাকরি করেন বাংলাদেশী মনিরুজ্জামান। তিনি বলেন, আমি এক বছর পরে দেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করছি। তাই সময় শেষ হয়ে যাওয়ার আগেই আমি দূতাবাসে এসেছি। আমরা যদি সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়ার একদিন আগেও পুরনো পাসপোর্ট জমা দিই তাও দূতাবাস গ্রহণ করবে।

এক্ষেত্রে শ্রমিকদের পাসপোর্ট পরিবর্তনে সহযোগিতা করার জন্য বিভিন্ন কোম্পানির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত।

বাংলাদেশ সময় : ১৭১০ ঘন্টা ০২ নভেম্বর , ২০১৫

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password