এখন জাজের ছবি মানেই দর্শক আছে : আবদুল আজিজ

পারশী চৌধুরী, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট 

বাংলাদেশী চলচ্চিত্রের যখন বেহাল দশা, তখনই যে প্রতিষ্ঠান এসে অ্যানালগ সিস্টেমকে পরিবর্তন করে ডিজিটাল সিস্টেম করে সবার নিকট গ্রহণযোগ্য করে তোলে তার নাম জাজ মাল্টিমিডিয়া। আবদুল আজিজ এ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে রয়েছে তার গুরুত্বপূর্ন অবদান। আজ তার মুখোমুখি হয়ে বেশ কিছু প্রশ্নের জবাব পেলাম আমরা। এবার পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হল …..

জাজ মাল্টিমিডিয়া নামটি কার দেওয়া ? কত সালে শুরু করেছিলেন এই প্রতিষ্ঠান ?

আবদুল আজিজ : জাজ শুরু করি ২০১১ সালের দিকে। আর এ প্রতিষ্ঠানের নাম আমার দেওয়া।

জাজের প্রথম ছবি মুক্তি দিতে গিয়ে কি কি সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল ?

আবদুল আজিজ : জাজের প্রথম ছবি ‌ভালোবাসার রঙ মুক্তি দিতে গিয়ে বেশ সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল। তখন মানুষ ডিজিটাল বিষয়টা বুঝত না। সকলকে আস্তে আস্তে বুঝাতে হয়েছে। কিন্তু এখন সকলে বোঝে। আর জাজের কোনো ব্র্যান্ড নাম ছিল না, এখন আছে। এখন জাজের ছবি মানেই একটা দর্শক আছে, আর হল মালিকরাও নিতে আগ্রহ দেখান।

2S2A3273-

এই প্রতিষ্ঠানের বিশেষ কোন দিকটা আপনি দেখভাল করেন ?

আবদুল আজিজ : এই প্রতিষ্ঠানের সবকিছুই দেখতে হয় আমাকে। সবচেয়ে বেশি দেখি ক্রিয়েটিভ দিকটা। এই যেমন, ছবির গল্প নির্বাচন, গল্প পরিচালনা ও আর্টিস্ট নির্বাচনের বিষয়গুলো নিজেই দেখি আমি।

এই প্রতিষ্ঠান করবেন বা ফিল্মের প্রোডাকশনের কাজ শুরু করবেন- কবে থেকে এ ভাবনার শুরু ?

আবদুল আজিজ : ২০১০ সালে। যখন মনে হলো নতুন একটা ব্যবসা শুরু করবো, তখন মনে হলো প্রথমে হ্যান্ডিক্রাফটের ব্যবসা শুরু করি। তখন আমার ৪-৫ টা ব্যবসা এমনিতেই চালু ছিল। কারণ, আমি দুই বছর পর পর নতুন আরেকটি ব্যবসা শুরু করি। তখন, একজন বললো ফিল্মের ব্যবসা করার জন্য। তখন ছবিতে স্টাডি করে তখন দেখলাম, ৩৫ এ ছবি হচ্ছে প্রচুর কিন্তু ভেতরে ফাঁকা। এরপর এভাবেই নতুন চিন্তা ও পরিকল্পনা নিয়ে ডিজিটাল ছবি তৈরি বা কাজে হাত দেওয়া শুরু হলো।

জাজ থেকে এ পর্যন্ত কতগুলো ছবি মুক্তি পেয়েছে ? আর সামনে মুক্তি পাবে এমন ছবি কয়টি ?

আবদুল আজিজ : জাজ মাল্টিমিডিয়া থেকে এ পর্যন্ত মোট ১৩ টি ছবি মুক্তি পেয়েছে। আর মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে অনেক দামে কেনা, লালচর ও বাংলাদেশের প্রথম অ্যানিমেশন ছবি ডিটেকটিভ।

বর্তমানে কি কি ক্যামেরা আছে জাজ মাল্টিমিডিয়ায় ?

আবদুল আজিজ : আমাদের ৩টি রেড অ্যামেক্স ফুল সেটআপ, আর একটা ব্যাকআপ আছে। এছাড়া কালার গ্রেডিং, সাউন্ডেরও দক্ষ লোক রয়েছে।

জাজ নিয়ে আপনার ভবিষৎ পরিকল্পনা কি ?

আবদুল আজিজ : বাংলাদেশের সবগুলো হল ডিজিটাল করার ইচ্ছে আছে। এরপর জাজ টিভি চ্যানেল করার ইচ্ছে ও সরকার নিজে হল না করলে আমাদের জমি লিজ দিলে আমরা প্রত্যেকটি জেলা শহরে একই জায়গায় দুটি করে সিনেপ্লেক্স করার চেষ্টা করব।

বাংলাদেশ সময়: ১৩১৫ ঘণ্টা, ২৭ অক্টোবর,২০১৫

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password