আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে শক্তিশালী ভূমিকম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে অন্তত ১৮২ জনের প্রাণহানির খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বরাতে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানায়, পাকিস্তানে অন্তত ১৪৭ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আর আফগানিস্তানে ৩৫ জনের প্রাণহানির খবর দিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। এ পর্যন্ত কেবল পাকিস্তানেই এ হাজারেরও বেশি মানুষের আহত হবার খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

তবে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে এখনও পৌঁছানো যায়নি উল্লেখ করে মৃতের সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। সোমবার দুপুরে শক্তিশালী ভূমিকম্পে একযোগে কেঁপে ওঠে আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং ভারত। প্রায় এক মিনিট ধরে স্থায়ী হওয়া এ ভূমিকম্পে আহত হয়েছে আরও শত শত মানুষ। প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে ১ হাজারে গিয়ে ঠেকতে পারে বলে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক সংস্থার বরাতে আশঙ্কা জানিয়েছে গার্ডিয়ান।

file (2)

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলে উৎপত্তি হওয়া ভূমিকম্পটির মাত্রা ৭.৫। ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ফায়জাবাদ থেকে ৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণে আফগানিস্তানের হিন্দুকুশ অঞ্চলে।

পাকিস্তান পরিস্থিতি :

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন জানায়, সোমবার দেশটির লাহোর, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, পেশাওয়ার, কোয়েটা, কোহাট এবং মালাকান্দে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ২১২.৫ কিলোমিটার। আর মাত্রা ৭.৫। তবে পাকিস্তানের আবহাওয়া দপ্তরের দাবি, ভূমিকম্পটির মাত্রা ৮.১।

ভূমিকম্পের কারণে ইসলামাবাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে এবং রাওয়ালপিন্ডি ও পেশাওয়ারের বেশ কয়েকটি বাড়ি ধসে পড়েছে বলে জানিয়েছে ডন। সংবাদমাধ্যমটি আরও জানায়, আহতদের মধ্যে অন্তত ১৯৪ জনকে সোয়াতের সাইদু শরীফ টিচিং হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর ১শ’রও বেশি মানুষকে ভর্তি করা হয়েছে পেশাওয়ারের লেডি রিডিং হাসপাতালে।

সকল প্রাদেশিক, সামরিক-বেসামরিক ও অাঞ্চলিক সংস্থাগুলোকে জরুরি সতর্কতা ঘোষণা এবং পাকিস্তানের নাগরিকদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ।

ফরাসি সংবাদমাধ্যম এএফপি’র বরাতে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানায়, সোমবার ভূমিকম্পে আতঙ্কিত হয়ে বের হওয়ার সময় পদদলিত হয়ে আফগানিস্তানের তালুকান সিটির একটি স্কুলের অন্তত ১২ শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। পরে আহত অবস্থায় আরও ৩০ শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিন ভূমিকম্পে আফগানিস্তানের নানগারহার প্রদেশে আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে গার্ডিয়ান। এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় আরো বেশ ক’জনের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, সোমবার ভূমিকম্পের সময়, কাবুলের রাস্তায় চলমান গাড়িগুলো দাঁড়িয়ে যায়। লোকজন গাড়ি থেকে রাস্তায় নেমে আসেন এবং ভূমিকম্প শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকেন।

ভারত পরিস্থিতি

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, সোমবার স্থানীয় সময় দুপুর আড়াইটার দিকে দেশটির উত্তরাঞ্চল, দিল্লি, কাশ্মির, হিমাচল প্রদেশ, হরিয়ানা এবং পাঞ্জাবে প্রায় এক মিনিট ধরে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। ভূমিকম্পের কারণে জম্মু কাশ্মিরের টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।
অনেক মানুষই পুন:কম্পনের আশঙ্কায় ভবনে ফিরতে আতঙ্কবোধ করছেন।
দিল্লি মেট্রোর মুখপাত্র অনুজ দয়ালের বরাতে গার্ডিয়ান জানায়, ভূমিকম্পের সময় লাইনে থাকা ১৯০টি ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে রেললাইন পরীক্ষা করার পর আবারও ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

ভূমিকম্পের পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইটারে বলেন, ‌‘আফগানিস্তান-পাকিস্তানে বড়সড় ভূমিকম্পের কথা শুনেছি। ভারতেও এর প্রভাব পড়েছে। প্রার্থনা করি সকলেই সুরক্ষিত আছেন। কোথায় কত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে। আফগানিস্তান এবং পাকিস্তান-সহ যেখানে যেখানে সাহায্যের প্রয়োজন তার জন্যও প্রস্তুত আমরা।’

কেমন হতে পারে ক্ষয়ক্ষতি?

বিজ্ঞানবিষয়ক রিপোর্টার জোনাথন ওয়েবের বিশ্লেষণের বরাতে বিবিসি জানায়, প্রতিবছর পৃথিবীতে গড়ে ২০টি ৭মাত্রার বেশি ভূমিকম্প হয়ে থাকে। তবে ভূমিকম্পের গভীরতার কারণে ক্ষয়ক্ষতির হেরফের হয়ে থাকে। ভূমিকম্পের গভীরতা যত বেশি হয়ে থাকে, ভূপৃষ্ঠে এর কম্পন তত কম অনুভূত হয়ে থাকে। আর সেদিক থেকে বেশি গভীরতার ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়ে থাকে।

চলতি বছরের এপ্রিলে নেপালে যে ভূকম্পনটি অনুভূত হয়েছিল তার গভীরতা ছিল মাত্র ৮ কিলোমিটার। আর তাতে প্রাণ হারিয়েছিল ৮ হাজারেরও বেশি মানুষ।

একইভাবে ২০০৫ সালে কাশ্মিরে ৭.৬ মাত্রার যে ভূকম্পনটি হয়েছিল তার গভীরতা ছিল মাত্র ২৬ কিলোমিটার। আর সোমবার আফগানিস্তানে উৎপত্তি হওয়া ৭.৫ মাত্রার ভূকম্পনটির গভীরতা ২শ’ কিলোমিটারের বেশি। অর্থাৎ ভূমিকম্পটির বিস্তৃতি বেশি হলেও তুলনামূলকভাবে ক্ষয়ক্ষতি কম হবে বলে ধারণা প্রকাশ করেন জোনাথন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৩ ঘণ্টা, ২৬ অক্টোবর,২০১৫

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password