মাঠেই নামার কথা ছিল না রাকিতিচের!

স্পোর্টস ডেস্ক :

সাইড বেঞ্চেই বসা ছিলেন ইভান রাকিতিচ। কিন্তু খুব দ্রুতই মাঠে নেমে যেতে হলো তাঁকে। খেলা শুরু হয়ে কিছু সময় যেতে না যেতেই চোট পেলেন সার্জি রবার্তো। ​মাঠে নামার সময় রাকিতিচ কী ভেবেছিলেন কে জানে!

কিন্তু মঙ্গলবার রাতে বার্সেলোনার ‘বীর’ যে তিনিই। ক্রোয়েশিয়ার এই মধ্যমাঠ তারকার দুই গোলই যে চ্যাম্পিয়নস লিগে বাতে বরিসভের বিপক্ষে ২-০ গোলের দারুণ এক জয় এনে দিয়েছে লুইস এনরিকের শিষ্যদের।

রাকিতিচ গোল করে বীর হয়েছেন। কিন্তু রাকিতিচকে দিয়ে যিনি এই দুই গোল করালেন তাঁর কথা ভুলে গেলে চলবে কেন! লিওনেল মেসি মাঠে নামতে পারছেন না, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তারও চোট। কিন্তু ব্রাজিলীয় সেনসেশন নেইমার যেভাবে মাঠে দলের সাফল্য-যাত্রার নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তাতে কোচের কাছ থেকে আলাদা প্রশংসা তিনি পেতেই পারেন। কাল অন্তত বরিসভে দলে নেতৃস্থানীয় ভূমিকাটা ছিল তাঁরই।

কাল বাতের বিপক্ষে বলের দখল ছিল বার্সেলোনা খেলোয়াড়দের পায়েই। সুস্পষ্ট প্রাধান্য থাকলেও গোলের সুযোগ সৃষ্টির দৈন্যটা ছিলই। সে জন্য ম্যাচে অবিসংবাদিত সেরা হয়েও গোলের ব্যবধানটা বেশি বড় করতে পারেনি বার্সেলোনা। ম্যাচের প্রথমার্ধে সার্জিও বুসকেটস কিংবা মুনির এল হাদ্দাদির প্রচেষ্টাগুলো থেকে বার্সা গোল পেলেও পেতে পারতো। দ্বিতীয়ার্ধেও বাতের ডি বক্সের ভেতরে নেইমারের একটি শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

ম্যাচের প্রথমার্ধ গোলশূন্য ছিল। প্রথম গোল পেতে বার্সেলোনাকে অপেক্ষা করতে হয় ৪৮ মিনিট পর্যন্ত। ডি বক্সের বাইরে নেইমারের পাস থেকে বল পেয়ে জোরালো শটে রাকিতিচ গোল পোস্টের ওপরের ডান কোনা দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন।

৬৪ মিনিটে নেইমারের আরও সুন্দর এক পাস থেকে বল পেয়ে স্কোরলাইনে নিজের নাম দ্বিতীয়বারের মতো লেখেন রাকিতিচ। চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে গোল করার পর এই প্রথম বার্সেলোনার জার্সিতে গোল পেলেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতের এই জয় চ্যাম্পিয়নস লিগের ‘ই’ গ্রুপের পয়েন্ট তা​লিকায় বার্সেলোনাকে শীর্ষেই রেখেছে। এ​ই গ্রুপের অপর ম্যাচে বেয়ার লেভারকুসেন ও রোমার মধ্যকার খেলাটি ৪-৪ গোলে ড্র হওয়ায় পয়েন্ট তালিকায় বাতের এক ধাপ নিচেই থাকল রোমা। লেভারকুসেনের চেয়ে বার্সেলোনার পয়েন্টের ব্যবধান ৩।

নায়ক হয়েও জয়টা বেশি গোলে না আসার অতৃপ্তিটা থেকেই গেছে রাকিতিচের,‘আমরা পুরো ম্যাচেই চাপ সৃষ্টি করে রেখেছিলাম। প্রচুর আক্রমণও করেছি। আরও দুই-একটি গোল বেশি হলে মন্দ হতো না। বাতে তো ​বলার মতো কোনো সুযোগই সৃষ্টি করতে পারেনি।’

একই দিনেই ফিফার কাছ থেকে বছরের সেরা দশ কোচের তালিকায় মনোনয়ন পেয়েছেন লুইস এনরিকে। চ্যাম্পিয়নস লিগের এই জয় তাঁকেও দিয়েছে তৃপ্তি। তাঁর তৃপ্তিটা একটু বেড়েছে ম্যাচটি অ্যাওয়ে হওয়ার কারণেই, ‘চ্যাম্পিয়নস লিগে অ্যাওয়ে ম্যাচগুলো কখনোই সহজ বলা যায় না।

এই ম্যাচগুলোতে অনেক ধরনের প্রতিকূলতা থাকে। প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আমরা এই ম্যাচটা জিতেছি এবং ভালো খেলেই জিতেছি। যদিও গোল করতে অসুবিধা হয়েছে, জয়ের ব্যবধান বাড়েনি। কিন্তু সার্বিকভাবে আমরা ভালো ফুটবলই খেলেছি।’

সূত্র: এএফপি

বাংলাদেশ সময়:১০৫২ ঘণ্টা, ২১ অক্টোবর,২০১৫

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password