ধর্ষণ শেষে হত্যা করলো শিশু শ্যালিকাকে

ভগ্নিপতির লালসার শিকার হয়ে জীবন দিলো ১১ বছরের শিশু রোসেনা। ভগ্নিপতি শাহীন (২৩) শিশুটির কচি হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ শেষে হত্যা করে ফেলে রেখে যায়। ঘটনাটি ঘটেছে নিকলী উপজেলার দামপাড়া ইউনিয়নের আলিয়াপাড়া শেখ নবিনপুর গ্রামে।

নিহত রোসেনা আলিয়াপাড়া শেখ নবিনপুর গ্রামের ফাইজুল ইসলামের কন্যা। সে টেংগুরিয়া দাখিল মাদরাসার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। অন্যদিকে ঘাতক ভগ্নিপতি শাহীন একই উপজেলার সিংপুর ইউনিয়নের ভাটিভরাটিয়া গ্রামের বাসিন্দা মানিক মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও পরিবার জানিয়েছে, শাহীনের সাথে বছরখানেক আগে ফাইজুল ইসলামের দ্বিতীয় মেয়ে সুলতানার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই শাহীনের সঙ্গে সুলতানার নানা বিষয় নিয়ে কলহ চলে আসছিল। এর জের ধরে তিন মাস আগে অন্তঃসত্ত্বা সুলতানাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন ফাইজুল ইসলাম। এরপর থেকে সুলতানা আলিয়াপাড়া শেখ নবিনপুর গ্রামের বাবার বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন।

জানা গেছে বাড়ির একটি আলাদাঘরে অন্তঃসত্ত্বা সুলতানার সঙ্গে ছোট বোন রোসেনা থাকতো। বৃহস্পতিবার রাতে সেই ঘর থেকে ভগ্নিপতি শাহীন রোসেনাকে বাইরে ডেকে নেয়। পরে হয়তো রোসেনা ঘরে এসে ঘুমিয়ে পড়েছে, এই ভেবে রাতে পরিবারের কেউ আর রোসেনার খোঁজ নেয়নি। শুক্রবার সকালে বাড়ির পেছনের একটি ধইঞ্চা ক্ষেতে রোসেনার লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে জানায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হাত-পা বাঁধা ও রক্তাক্ত অবস্থায় রোসেনার লাশ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা ফাইজুল ইসলাম বাদী হয়ে শাহীনকে একমাাত্র আসামি করে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এছাড়া শিশুটির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password